1. admin@manirampurkantho.com : admin :
  2. jahidjashore98@gmail.com : jahid :
শিরোনাম :
মণিরামপুরে আটককৃত ৫৫৫ বস্তা চাল নিলামে বিক্রি এখনও সক্রিয় মণিরামপুরে চাল পাচার সিন্ডিকেট! ‘আম্ফান’: ছাত্রলীগকে দুর্গত মানুষদের পাশে থাকার নির্দেশ ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের ৭ নম্বর বিপদ সংকেত মণিরামপুরে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ম্যাসেঞ্জারে কুরুচিপূর্ণ বার্তা দিয়ে প্রেম নিবেদন মনিরামপুরে ফ্রি এ্য্যাম্বুলেন্স সার্ভিস উদ্বোধন করেন সাবেক এমপি পুত্র হুমায়ন সুলতান সরকারী চাল পাচারের ঘটনায় আটক শহিদুলকে আদালতে জবানবন্দি শেষে জেলহাজতে প্রেরণ আইনি জটিলতায় মণিরামপুর থানা চত্বরের খোলা আকাশের নিচে নষ্ট হতে চলছে উদ্ধারকৃত ৫৫৫ বস্তা চাল মণিরামপুরে ট্রাকভর্তি সরকারী চাল কালোবাজারে বিক্রয় সিন্ডিকেট নেতা শহিদুল গ্রেফতার করোনা ভাইরাসে বিক্রি নেই ফুল, কেশবপুরে মাঠেই শুকোচ্ছে বিভিন্ন প্রজাতির ফুল

জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের জন্য আশির্বাদ স্বরূপ -মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রী মোজাম্মেল হক

  • Update Time : শনিবার, ২৮ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ২৭১ Time View

নূরুল হক, মণিরামপুর: জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের জন্য আশির্বাদ স্বরূপ। তার জন্ম না হলে আমারা এই বাংলাদেশের মত একটি স্বাধীন রাষ্ট্র পেতাম না। ১৯৪৮ সালের ৪ জানুয়ারী বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে ছাত্রলীগ গঠিত হয়েছিল। পূর্বপাকিস্থানের জাতীয় নির্বাচনে তরুণ নেতা হিসেবে যুক্তফ্রন্টের সাথে নির্বাচন করে জয় পেয়েছিলেন এবং মন্ত্রীও হয়েছিলেন। কিন্তু পাকিস্থানী শাসকগোষ্টি অল্প দিনের মধ্যেই সে পার্লামেন্ট ভেঙ্গে দিয়েছিলে। ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধুর সেই ভাষণ ‘এবারের সংগ্রাম-স্বাধীনতার সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম’- বঙ্গবন্ধুর সেই কালজয়ী ভাষন আর তৎকালিন জাতীয়নেতা সৈয়েদ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমেদ, মুনসুর আলী, এএইচসএম কামারুজ্জামান প্রমুখ নেতৃবৃন্দের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় মুক্তি বাহিনী সেদিন খালি হাতেই পাকিস্থানের সশস্ত্র মিলিটারীর বিরুদ্ধে যুদ্ধের ময়দানে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল। সেই নিরস্ত্র মুক্তি বাহিনীর তাজা রক্ত, আর তাদের আত্মত্যাগের মাধ্যমে অর্জিত আমাদের এই মহান স্বাধীনতা। তাই মুক্তিযোদ্ধরাই জাতির শ্রেষ্ট সন্তান। তাদের কঠিন পরিশ্রমেই আজ আমরা একটি স্বাধীন রাষ্ট্রে বসবাস করতে পারছি। শনিবার বিকেলে মণিরামপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন উদ্বোধন শেষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রী আ,ক,ম মোজাম্মেল হক (এমপি)।

মণিরামপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আহসান উল্লাহ শরিফীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি আরও বলেন, আওয়ামীলীগ সরকার পরিচালনা করছে মাত্র ১৯ বছর। অন্যদিকে আওয়ামীলীগ ছাড়া দেশ পরিচালিত হয়েছে ৩৫ বছর। বঙ্গবন্ধুর যোগ্য উত্তর সূরী হিসেবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামীলীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা এই ১৯ বছরে দেশের যে উন্নয়ন করেছেন-কিন্তু ওই ৩৫ বছরে তার বিন্দু পরিমাণও উন্নয়ন হয়নি। তারা ক্ষমতায় গিয়ে হওয়া ভবন সৃষ্টি করেছে, এতিমেরে টাকা ভক্ষণ করেছে এবং বিদেশে টাকা পাঁচার করেছে।

আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য (এমপি) বলেন, ১৯৭১ সালের ডিসেম্বরে যদি আমরা সেই অসম মুক্তিযুদ্ধে বিজয়লাভ করতে না পারতাম তবে রাজাকার, আলবদর, আলশামস এ দেশেটাকে মরুভুমিতে পরিণত করতো। জননেত্রী শেখ হাসিনা মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে থাকেন। তাইতো আওয়ামীলীগ সরকার মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধার স্মৃতি বিজড়ীত সব কিছুই স্মরনীয় করে রাখার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। তারই অংশ হিসেবে আজ মণিরামপুরে নির্মিত হল মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন।
উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মোঃ রোকনুজ্জামানের পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি মুক্তিযোদ্ধা খায়রত হোসেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র কাজী মাহমুদুল হাসান, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নাজমা খানম, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক ফারুক হোসেন, সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা এম,এম নজরুল ইসলাম।
এছাড়া উপস্থিত ছিলেন মণিরামপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সাইয়েমা হাসান, যশোর জেলা সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার রাজেক আহমেদ, মণিরামপুর উপজেলা সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আলাউদ্দীন, উপজেলা আ’লীগনেতা জিএম মজিদ, অ্যাড. বশির আহম্মেদ খান, পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক কাউন্সিলর কামরুল ইসলাম কামরুল, উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক উত্তম চক্রবর্তী বাচ্চু, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান জলি আক্তার, মণিরামপুর থানা অফিসার ইনচার্জ রফিকুল ইসলাম, উপজেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সম আলাউদ্দীন, উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক শরিফুল ইসলাম রিপন, পৌর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক রবিউল ইসলাম রবি, উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক মুরাদুজ্জামান মুরাদ প্রমুখ।

এদিকে উপজেলার রাজগঞ্জ এলাকায় জাতীরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মুক্তিযুদ্ধ পূর্ববর্তী যেখানে দাড়িয়ে এলাকাবাসির উদ্দেশ্যে সংক্ষিপ্ত ভাষন দিয়েছিলেন-মাননীয় মন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীরা সে এলাকাটি পরিদর্শন করেন এবং সেখানে একটি স্মৃতি স্তম্ভ করার আশ্বাস দেন।


Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category


© All rights reserved © 2018 www.manirampurkantho.com